fbpx

নাস্তিকরা জারজ সন্তান?

Print Friendly, PDF & Email

ভূমিকা

প্রায় প্রতিদিনই অসংখ্য মুমিন মুসলমান আমাদের ইমেইলে, ইনবক্সে, ফেইসবুক পাতাগুলোতে এসে আমাদের একটি বিশেষ গালি দিয়ে দোজাহানের অশেষ নেকী হাসিল করেন। লক্ষ্য করলে দেখা যায়, তাদের মধ্যে সবচাইতে জনপ্রিয় গালিটি হচ্ছে, মতের ভিন্নতা থাকলেই কাউকে জারজ সন্তান বলে গালাগালি করা। এই বিশেষ গালিটিই কেন তাদের এত বেশি পছন্দ? তাদের এই গালাগালির উৎস কোথায়? তারা কী মনে করে, এই গালিটি দিলে নাস্তিকদের খুব পরাজিত করা যায়? যুক্তির বিরুদ্ধে যুক্তি, মতের বিরুদ্ধে মত, তথ্যের বিরুদ্ধে তথ্য না দিয়ে তারা সম্ভব হলে আমাদের চাপাতি আক্রমণ করে, সেটি সম্ভব না হলে বই বা ওয়েবসাইট নিষিদ্ধ করে, সেটিও না পারলে মেরে ফেলার হুমকি দেয়, সেটি করেও কোন কাজ না হলে জারজ বলে গালাগালি করে। এই গালিটিই যেন যুক্তি তথ্য প্রমাণের বিরুদ্ধে তাদের সকল রাগ ক্ষোভ এবং জালা মেটাবার একমাত্র পদ্ধতি। কিন্তু জারজ গালিটি আসলেই কী গালি হওয়ার উপযুক্ত? সেই সাথে, জারজ শব্দটি ব্যহহারের পেছনে তাদের মনস্তত্ত্ব কী? এই বিষয়েই আমাদের আজকের আলোচনা।

জারজ কাকে বলে?

শুরুতেই বলে নিচ্ছি, আমি জারজ সন্তানদের ততটাই পবিত্র মনে করি যতটা আরেকজন সমাজের চোখে কথাকথিত ‘বৈধ’ শিশুকে মনে করি। জন্ম সব সময়ই বৈধ, মানুষের জন্ম কখনো অবৈধ হতে পারে না। শিশুটির বাবা মায়ের সামাজিক বা ধর্মীয় প্রথা মাফিক বিয়ে হয়েছিল কিনা, তার ওপর ভিত্তি করে শিশুটির বৈধতার মূল্যায়ন আমার কাছে ভয়ঙ্কর নোংরা বিষয় মনে হয়। তাই যারা জারজ বলে গালি দেয়, তাদের আমি বর্বর মনে করি। অসভ্য মনে করি। যেই কাজের পেছনে শিশুটির কোন ভূমিকা নেই, সেই কাজের জন্য শিশুটিকে দায়ী করা, তাকে অপমান করা, অসম্মান করা, অত্যন্ত বর্বর কাজ।

‘জারজ’ শব্দের বাংলা অর্থ হচ্ছে, যার পিতৃপরিচয় নেই বা যে সমাজের দৃষ্টিতে অবৈধ সন্তান । মানে কোন নারী পুরুষ বিয়ে বহির্ভূত সম্পর্ক করার পরে যদি কোন সন্তান নারীর গর্ভে আসে তাকে আমাদের সমাজে জারজ বলে ডাকা হয়। সামাজিকভাবে এই ধরণের বাচ্চাদের নানাভাবে হেয় করা হয়, প্রতিনিয়ত অপমান এবং তুচ্ছ করা হয়। এটি একটি সামাজিক সমস্যা। এই সমস্যা মোকাবেলায় আমাদের এগিয়ে আসতে হবে। এই শব্দটিকেই ধীরে ধীরে বিলুপ্ত করে দিতে হবে। কোন শিশুকে যেন তার জন্মের কারণে অপমানিত হতে না হয়, অন্য বাচ্চাদের সামনে ছোট হতে না হয়। মনে রাখতে হবে, শিশুদের আত্মসম্মানবোধ খুব প্রবল থাকে। এই ধরণের তাচ্ছিল্য তাদের মানসিকভাবে ভয়াবহভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

উল্লেখ্য, মুসলিমদের মধ্যে যারা প্রতিনিয়ত অন্যদের জারজ বলে গালি দেন, তারা হয়তো ভুলেই যান যে, তাদের ঈসা নবী ছিলেন পিতৃপরিচয়হীন, প্রচলিত সামাজিক নিয়ম অনুসারে যাদেরকে জারজ সন্তানই বলা হয়। আজকে ধরুন কোন নারীর স্বামী বিদেশে থাকেন, সেই নারী যদি গর্ভবতী হয়ে দাবী করেন যে, আল্লাহর কুদরতে তিনি গর্ভবতী হয়ে গেছেন, ফেরেশতা বা জ্বীন এসে তাকে গর্ভবতী করে দিয়ে গেছে, এই কথা খুব বোকা লোকও বিশ্বাস করবে না। ঈসা নবীর মা মরিয়মের সময়ও নিশ্চয়ই লোকলজ্জার ভয় ছিল, তাই মরিয়ম বলতে পারে নি কীভাবে ঐ সন্তানটির জন্ম হয়েছিল। আল্লাহর ওপর দোষ চাপিয়ে দেয়া সহজ, কারণ কে আবার বিষয়টি যাচাই করতে যাবে?

কোরআনে জারজ গালাগালি

ইসলাম ধর্মের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআনে বহু জায়গাতে অমুসলিমদের নানাভাবে গালাগালি করা হয়েছে। সেইসব গালাগালি নিয়ে অন্যত্র আলচনা করা যাবে, আজকে শুধু এই বিশেষ গালিটি নিয়েই আলোচনা করছি। কোরআনে কাফেরদের সম্পর্কে জারজ বলে একটি জায়গাতে গালি দেয়া হয়েছে। কোরআনের সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য অনুবাদে এই শব্দটিই ব্যবহৃত হয়েছে [1]

কঠোর স্বভাব, তার উপরে আবার কুখ্যাত।
Taisirul Quran
রূঢ় স্বভাব এবং তদুপরি কুখ্যাত।
Sheikh Mujibur Rahman
দুষ্ট প্রকৃতির, তারপর জারজ।
Rawai Al-bayan
রূঢ় স্বভাব [১] এবং তদুপরি কুখ্যাত [২];
Dr. Abu Bakr Muhammad Zakaria

জারজ সন্তান

এই বিষয়ে তাফসীরে ইবনে কাসীরে যা বলা হয়েছে, [2]

ইকরামা (রঃ) বলেন যে, জারজ সন্তান উদ্দেশ্য। এটাও বর্ণিত আছে যে, কর্তিত কান বিশিষ্ট বকরী, যে কান তার গলদেশে ঝুলতে থাকে, এরূপ বকরীকে যেমন পালের মধ্যে সহজেই চেনা যায় ঠিক তেমনই মুমিনকে কাফির হতে সহজেই পৃথক করা যায়। এ ধরনের আরো বহু উক্তি রয়েছে। কিন্তু সবগুলোরই সারমর্ম হলো এই যে, (আরবি) হলো ঐ ব্যক্তি যে কুখ্যাত এবং যার সঠিক নসবনামা এবং প্রকৃত পিতার পরিচয় জানা যায় না। এ ধরনের লোকদের উপর শয়তান খুব বেশী জয়যুক্ত হয় এবং তাদের উপর প্রভাব বিস্তার করে থাকে। যেমন হাদীসে এসেছেঃ “জারজ সন্তান জান্নাতে প্রবেশ করবে না। অন্য এক হাদীসে আছেঃ জারজ সন্তান তিনজন মন্দ লোকের একজন, যদি সেও তার পিতা-মাতার মত আমল করে।”

আসুন সরাসরি এবারে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের তাফসীরে ইবনে কাসীর গ্রন্থ থেকে এই আয়াতটির তাফসীরের অংশ বিশেষ পড়ি, [3]

জারজ সন্তান

মুহাম্মদের জন্ম রহস্য

মুহাম্মদের জন্মদাতা বলে নানা জায়গাতে বর্ণিত যে নামটি, সেটা হচ্ছে আবদুল্লাহ বিন আবদুল মুত্তালিব। যদিও কিছু সূত্র অনুসারে এই বিষয়টা নিয়ে বড় ধরণের একটা ঘাপলা সবসময়ই আছে। ঘাপলাটি কি সেটা জানার জন্য বেশ কিছু বিষয় জানা থাকতে হবে। বিশেষভাবে উল্লেখ্য, নবী মুহাম্মদ আবদুল্লাহর বৈধ সন্তান, নাকি তিনি আবদুল মুত্তালিবের সন্তান, তা নিয়ে আমাদের বিন্ধুমাত্র মাথাব্যথা নেই। মানুষ তার কাজের মাধ্যমেই পরিচিত হবে, জন্মের মাধ্যমে নয়। আমি শুধুমাত্র ঐতিহাসিক সূত্রগুলো থেকে একটি সমস্যা আপনাদের সামনে তুলে ধরছি।

১. আমিনা ও হালার বিবাহ একই দিনে

প্রথমেই জানা দরকার, মুহাম্মদের জন্মদাতা আবদুল্লাহ এবং আমিনার বিয়ে কীভাবে হয়েছিল। মুহাম্মদের মাতা আমিনা ছিলেন বানু জুহরা গোত্রের। তার বাবার নাম ছিল ওয়াহাব ইবনে আবদমানাফ (মানাফের দাস)। এবং মায়ের নাম ছিল, বারাহ বিনতে আবদুল উজ্জা। আবদ- মানে হচ্ছে দাস। আবদ আল উজ্জা মানে হচ্ছে উজ্জার দাস। উজ্জা কে ছিল তা জেনে নিন। সামান্য পড়ালেখা করলেই জানতে পারবেন।

সে সময়ে মুহাম্মদের দাদা আবদুল মুত্তালিব তার পুত্র আবদুল্লাহকে নিয়ে ওয়াহাবের বাসায় যায় আমিনার সাথে পুত্র আবদুল্লাহর বিয়ে দেয়ার জন্য। সে সময়ে আমিনার ভাইয়ের মেয়ে হালাকে দেখে আবদুল মুত্তালিবেরও বিবাহ করতে ইচ্ছে হয় এবং তিনি নিজে হালাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। এরপরে একই দিনে আবদুল মুত্তালিব বিয়ে করেন হালাকে, এবং তার পুত্র আবদুল্লাহ বিয়ে করেন আমিনাকে। দাবী করা হয়, সেইখানেই আবদুল্লাহর সাথে আমিনার বাসর হয় এবং আমিনা গর্ভবতী হয়। মার্টিন লিংগস এর বিখ্যাত গ্রন্থ Muhammad: His Life Based on the Earliest Sources থেকে আসুন সরাসরি দেখে নিই, এই বিষয়টি, [4]

Wahb had been chief of Zuhrah but had died some years previously and
Aminah was now a ward of his brother Wuhayb, who had succeeded him
as chief of the clan. Wuhayb himself also had a daughter of marriageable
age, Halah by name, and when ‘Abd al-Muttalib had arranged that his son
should marry Aminah, he asked that Halah should be given in marriage to
himself. Wuhayb agreed, and all preparations were made for the double
wedding to take place at the same time.
On the appointed day, ‘Abd
al-Muttalib took his son by the hand, and they set off together for the
dwellings of the Bani Zuhrah.’ On the way they had to pass the dwellings
of the Bani Asad; and it so happened that Qutaylah, the sister ofWaraqah,
was standing at the entrance to her house, perhaps deliberately in order to
see what could be seen, for everyone in Mecca knew of the great wedding
which was about to take place. ‘Abd al-Muttalib was now over seventy
years old, but he was still remarkably young for his age in every respect;
and the slow approach of the two bridegrooms, their natural grace
enhanced by the solemnity of the occasion, was indeed an impressive sight.
But as they drew near, Qutaylah had eyes only for the younger man. ‘Abd
Allah was, for beauty, the Joseph of his times. Even the oldest men and

জারজ সন্তান

পাঠক, লক্ষ্য করে পড়বেন। আমিনা এবং হালা এই দুইজনার বিবাহ হয়েছিল একই দিনে। পিতা আবদুল মুত্তালিব এবং পুত্র আবদুল্লাহর সাথে। এর অল্প কিছুদিন পরেই পিতা আবদুল মুত্তালিবের নির্দেশে আবদুল্লাহ বিদেশ ভ্রমণে যান এবং সেখানেই অজানা রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

২. অল্প সময় পরেই আবদুল্লাহর মৃত্যু

অনেকগুলো রেফারেন্সেই পাওয়া যায় যে, নবীর জন্মের সময় আবদুল্লাহ মক্কায় ছিলেন না। একই সাথে, আবাবিলের ঘটনার সময়ও আবদুল্লাহ মক্কায় ছিলেন না। [5]

জারজ সন্তান

আরো বেশ কিছু তথ্যসূত্র থেকেই বিষয়টি জানা যায় যে, আমিনার সাথে আবদুল্লাহর বিয়ের অল্প কিছুদিন পরেই আবদুল্লাহর মৃত্যু হয়। কোন কোন বর্ণনায় সেটি বিয়ের অল্প কিছুদিনের মাথায়, কেউ কেউ বলেছেন আরেকটু বেশি। তবে সেটি খুবই অল্প সময়েই হয়েছিল সে বিষয়ে সকল আলেমই একমত [6]। অল্প কিছু ঐতিহাসিক দাবী করেছেন, মুহাম্মদ পিতার মৃত্যুর দুইমাস পূর্বে জন্ম নিয়েছেন, তবে সেই দাবীর পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ নেই। মূলত হামযার বয়স হিসেব করেই এই সব ঐতিহাসিক এই কথাটি বলেন।

জারজ সন্তান

উপরের রেফারেন্সে দেখা যাচ্ছে, অল্প কিছু ঐতিহাসিকের মতে, নবীর জন্মের দুই মাস পরে আবদুল্লাহর মৃত্যু হয়েছিল। এরকম হয়ে থাকলে আরো বেশী জটিলতা সৃষ্টি হয়। কারণ আমিনার সাথে বিবাহের অল্প কিছুদিনের মধ্যেই আবদুল্লাহ বিদেশ চলে গেলে, এই দীর্ঘ সময়ে আমিনা গর্ভবতী হয়েই ছিলেন? [7]

জারজ সন্তান

৩. হামযা নবীর চেয়ে ৪ বছরের বড়

ঐদিকে হালাও গর্ভবতী হন, আবদুল মুত্তালিব দ্বারা, এবং জন্ম দেন হামজা নামের এক সন্তানকে। এই হামজা পরে মুহাম্মদের অনুসারী হন এবং হামজা তাঁর ৫৯ বছর বছর বয়সে ২২ মার্চ ৬২৫ (৭ শাওয়াল ৩ হিজরি ) উহুদ যুদ্ধে নিহত হন।

মৃত্যুকালে তার বয়স ছিল ৫৯ বছর। যা ইবনে সা’দ, আল-ওয়াকিদীর দাবির উপর ভিত্তি করে বলেন। একইসাথে, মুহাম্মদের চাইতে তিনি চার বছরের বড় ছিলেন। তবে ফাত উল বারী গ্রন্থের লেখক বিখ্যাত মুহাদ্দিস ইবনে হাজার আসকালানী, ইবনে সাইয়্যিদের হাদিসের শেষে লিখেছেন: “হামজার জন্ম মুহাম্মদের দুই থেকে চার বছর আগে”।

আসুন, তাবাকাত ইবনে সা’দ গ্রন্থ থেকে দেখে নিই, হামযা আসলেই মুহাম্মদের থেকে কত বড় ছিলেন। [8]

জারজ সন্তান

৪. আবু তালিবের বিবাহে অস্বীকৃতি

মুহাম্মদ তার দাদা আবদুল মুত্তালিবের মৃত্যুর পরে চাচা আবু তালিবের কাছেই মানুষ হয়। সেই সময়ে চাচাতো বোন উম্মে হানীকে তিনি বিয়ের প্রস্তাব দিলে চাচা আবু তালিব মুহাম্মদকে তার তুলনায় যথেষ্ট সম্মানীয় বলে মনে না করায় সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। কিন্তু আবু তালিব এবং মুহাম্মদের বংশ তো একই, সেখানে মুহাম্মদ কেন সম্মানের দিক দিয়ে আবু তালিবের চেয়ে ছোট বা তুচ্ছ, তা বোধগম্য হচ্ছে না [9]

জারজ সন্তান

৫. আবদুল মুত্তালিবের পুত্র?

বহু সংখ্যক সহিহ হাদিস অনুসারে, নবী মুহাম্মদ বিভিন্ন স্থানে নিজেকে আবদুল মুত্তালিবের পুত্র হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন। সরাসরি নিজেকে ইবনে আবদুল মুত্তালিবই বলেছেন, মাঝে পিতার নাম উল্লেখ না করে। তবে সেই সময়ে আরবে এভাবে দাদার নামও বলা হতো, এটি কোন মূখ্য প্রমাণ নয়। তারপরেও হজাদিসগুলো দেখে নেয়া প্রয়োজন। তার আগে দেখে নিই, আবদুল মুত্তালিব পুত্রবধু আমিনাকে কতটা ভালবাসতেন, এবং মুহাম্মদকেও কতটা ভালবাসতেন [10]

জারজ সন্তান

সহীহ মুসলিম (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৩৩/ জিহাদ ও এর নীতিমালা
পরিচ্ছেদঃ ২৮. হুনায়নের যুদ্ধ
৪৪৬৫। আহমাদ ইবনু জানাব মিসসিসী (রহঃ) … আবূ ইসহাক (রহঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, জনৈক ব্যক্তি বারা (রাঃ) এর নিকট এসে বললো, আপনারা কি হুনায়নের দিনে পলায়ন করেছিলেন? তখন তিনি বললেন, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তিনি পলায়ন করেন নি। কিন্তু কিছু সংখ্যক অতি ব্যস্ত ও বর্মহীন লোক হাওয়ায়িন গোত্রের দিকে গিয়েছিল। আর তারা ছিল তীরন্দায সম্প্রদায়। তারা তাদের প্রতি ঝাঁকে ঝাঁকে তীর ছুড়লো, যেন সেগুলো পঙ্গপালের পায়ের মত। তখন তারা পিছন দিকে হটে গেল। আর লোকেরা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে এগিয়ে এলো। আবূ সুফিয়ান ইবনু হারেস (রাঃ) তাঁর খচ্চর টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি অবতরণ করলেন এবং আল্লাহর কাছে সাহায্য চেয়ে দুআ করলেন এবং তিনি বললেনঃ আমি অবশ্যই আল্লাহর নবী, একথা মিথ্যে নয়। আমি আবদূল মুত্তালিব এর পুত্র। “ইয়া আল্লাহ! আপনার সাহায্য নাযিল করুন”।
বারা (রাঃ) বললেনঃ, আল্লাহর কসম! যুদ্ধের-উত্তেজনা যখন ঘোরতর হয়ে উঠল, তখন আমরা তার মাধ্যমে আত্মরক্ষা করতাম। নিশ্চয়ই আমাদের মাঝে বীরপুরুষ তিনিই যিনি যুদ্ধে তাঁর অর্থাৎ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সামনে দাঁড়াতে সাহসী হত।
হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ আবূ ইসহাক (রহঃ)

সহীহ বুখারী (তাওহীদ পাবলিকেশন)
৫৬/ জিহাদ ও যুদ্ধকালীন আচার ব্যবহার
পরিচ্ছেদঃ ৫৬/৯৭. পরাজয়ের সময় সঙ্গীদের সারিবদ্ধ করা, নিজের সওয়ারী থেকে নামা ও আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করা।
২৯৩০. বারা’ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তাকে এক ব্যক্তি জিজ্ঞেস করল, হে আবূ উমারা! হুনায়নের দিন আপনারা কি পলায়ন করেছিলেন? তিনি বললেন, না, আল্লাহর কসম, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পলায়ন করেননি। বরং তাঁর কিছু সংখ্যক নওজোয়ান সাহাবী হাতিয়ার ছাড়াই অগ্রসর হয়ে গিয়েছিলেন। তারা বানূ হাওয়াযিন ও বানূ নাসর গোত্রের সুদক্ষ তীরন্দাজদের সম্মুখীন হন। তাদের কোন তীরই লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়নি। তারা এদের প্রতি এমনভাবে তীর বর্ষণ করল যে, তাদের কোন তীরই ব্যর্থ হয়নি। সেখান থেকে তারা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট এসে উপস্থিত হলেন। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তখন তাঁর সাদা খচ্চরটির পিঠে ছিলেন এবং তাঁর চাচাতো ভাই আবূ সুফ্ইয়ান ইবনু হারিস ইবনু ‘আবদুল মুত্তালিব তাঁর লাগাম ধরে ছিলেন। তখন তিনি নামেন এবং আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করেন। অতঃপর তিনি বলেন, আমি নবী, এ কথা মিথ্যা নয়। আমি ‘আবদুল মুত্তালিবের পুত্র। অতঃপর তিনি সাহাবীদের সারিবদ্ধ করেন। (২৮৬৪) (মুসলিম ৩২/২৮ হাঃ ১৭৭৬, আহমাদ ১৮৪৯৫) (আধুনিক প্রকাশনীঃ ২৭১৫, ইসলামিক ফাউন্ডেশনঃ ২৭২৬)
হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ বারা’আ ইবনু আযিব (রাঃ)

তথ্যগুলোর বিশ্লেষণ

উপরে যেই তথ্যসূত্রগুলো দেয়া হলো, তাতে বোঝা যাচ্ছে আমিনা এবং হালা গর্ভবতী হন। কিন্তু সমস্যাটি বাঁধে যখন হিসেব করতে বসি। প্রাপ্ত হিসেব মতে, মুহাম্মদ এবং হামজার বয়স হওয়ার কথা সমান, অথবা মুহাম্মদের চেয়ে হামজার বয়স হওয়ার কথা কম। যেহেতু আমিনাই আগে গর্ভবতী হয়েছিলেন বলে মনে হয়। যদি হালা আগে গর্ভবতী হয়ে থাকে, তাহলে আবদুল্লাহর আরও কিছুদিন মক্কায় থাকার কথা, কমপক্ষে দুই/তিন বছর তার সংসার করার কথা। কিন্তু সমস্ত সূত্র থেকেই জানা যায়, বিয়ের অল্প কিছুদিনের মধ্যেই আমিনা গর্ভবতী হন এবং আবদুল মুত্তালিবের নির্দেশে আবদুল্লাহ বিদেশ চলে যান। এবং, হামজা ছিলেন মুহাম্মদের চাইতে চার বছরের বড়। এখন আসুন হিসেবে মিলাই।

১) আবদুল্লাহ এবং আবদুল মুত্তালিব একই দিনে আমিনা এবং হালাকে বিয়ে করেন।
২) বিয়ের অল্প কিছুদিনের মধ্যেই আবদুল্লাহ বিদেশ ভ্রমণে যান এবং সেখানে তার মৃত্যু হয়।
৩) হামজা যেহেতু বড় সেহেতু হালা আগে গর্ভবতী হন। হামজার জন্ম হয়। মৃত্যুকালে হামযার বয়স ৫৯ ছিল, সেই হিসেবে হামযার জন্ম ৫৬৬ সালে।
৪) হামজার জন্মের চার বছর পরে মুহাম্মদের জন্ম হয়। কিন্তু আবদুল্লাহ যেহেতু বিয়ের অল্প কিছুদিন পরেই বিদেশ ভ্রমণে চলে যায়, তাই আবদুল্লাহ আমিনার সাথে তিন বা চার বছর সংসার করেছেন, এমন কোন প্রমাণই তো মেলে না। তিন বা চার বছর পরে তাহলে মুহাম্মদের জন্ম হয় কীভাবে?

আসুন চার্টের মাধ্যমে দেখি,

মুহাম্মদের জন্ম রহস্য

মুহাম্মদের পিতামাতা জাহান্নামী

নবী মুহাম্মদ তার পিতামাতা দুইজনকেই জাহান্নামী বলে গেছেন। সহিহ হাদিসে বিষয়গুলো পরিষ্কারভাবেই এসেছে। বিপরীতে এমন কোন সহিহ হাদিস নেই, যেখানে তিনি তার পিতামাতাকে জান্নাতি বলেছেন।

গ্রন্থের নামঃ সহীহ মুসলিম (ইফাঃ)
হাদিস নম্বরঃ [394]
অধ্যায়ঃ ১/ কিতাবুল ঈমান
পাবলিশারঃ ইসলামিক ফাউন্ডেশন
পরিচ্ছদঃ ৮২. কাফির অবস্থায় মৃত্যুবরণকারী জাহান্নামী; সে কোন শাফায়াত পাবে না এবং আল্লাহর নৈকট্য লাভকারী বান্দার সাথে আত্মীয়তার সম্পর্কও তার উপকারে আসবে না
৩৯৪। আবূ বকর ইবনু আবূ শায়বা (রহঃ) … আনাস (রাঃ) থেকে বর্নিত। জনৈক ব্যাক্তি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -কে জিজ্ঞেস করল, হে আল্লাহর রাসুল! আমার পিতা কোথায় আছেন (জান্নাতে না জাহান্নামে)? রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ জাহান্নামে। বর্ণনাকারী বলেন, লোকটি যখন পিছনে ফিরে যাচ্ছিল, তখন তিনি ডাকলেন এবং বললেনঃ আমার পিতা এবং তোমার পিতা জাহান্নামে।”
হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)

গ্রন্থের নামঃ সুনানে ইবনে মাজাহ
হাদিস নম্বরঃ [1572]
অধ্যায়ঃ ৬/ জানাযা
পাবলিশারঃ তাওহীদ পাবলিকেশন
পরিচ্ছদঃ ৬/৪৮. মুশরিকদের কবর যিয়ারত।
১/১৫৭২। আবূ হুরাইরাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর মায়ের কবর যিয়ারত করেন। তিনি কান্নাকাটি করেন এবং তাঁর সাথের লোকেদেরও কাঁদান। অতঃপর তিনি বলেন : আমি আমার রবের নিকট তার জন্য ক্ষমা প্রার্থনার অনুমতি চাইলে তিনি আমাকে অনুমতি দেননি। আমি আমার রবের নিকট তার কবর যিয়ারতের অনুমতি চাইলে তিনি আমাকে অনুমতি দেন। অতএব তোমরা কবর যিয়ারত করো। কেননা তা তোমাদের মৃত্যু স্মরণ করিয়ে দেয়।
মুসলিম ৯৭৬ ;নাসায়ী ২০৩৪; আবূ দাউদ ৩২৩৪; আহমাদ ৯৩৯৫ ইরওয়াহ ৭৭২। তাহকীক আলবানীঃ সহীহ।
হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)

গ্রন্থঃ সূনান নাসাঈ (ইফাঃ)
অধ্যায়ঃ ২১/ জানাজা
হাদিস নম্বরঃ [2038]
পাবলিশারঃ ইসলামিক ফাউন্ডেশন
পরিচ্ছদঃ ১০১/ মুশরিকের কবর যিয়ারত করা
২০৩৮। কুতায়বা (রহঃ) … আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্নিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার মাতার কবর যিয়ারত করার সময় ক্রন্দন করলেন, তার আশ পাশের সবাইও ক্রন্দন করলেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ আমি আম্মার মাগাফিরাতের অনুমতি চাইলাম কিন্তু আমাকে তার অনুমতি প্রদান করা হল না। অতঃপর তার কবর যিয়ারতের অনুমতি চাইলে তার অনুমতি দেওয়া হয়। তাই তোমরা কবর যিয়ারত কর, কেননা তা তোমাদের মৃত্যুর কথা স্মরণ করিয়ে দেয়।
[সহীহ। ইবন মাজাহ ১৫৭২, ইরউয়াউল গালীল ৭৭২]
হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)

আবদুল মুত্তালিব ছিলেন মুশরিক

মুহাম্মদের দাদা ছিলেন একজন মুশরিক এবং কাফের। এর প্রমাণ পাওয়া যায় চাচা আবু তালিবের মৃত্যুর সময় নবী মুহাম্মদের বারবার ইসলাম কবুল করার আহবান, এবং বিপরীতে আবু তালিবের তা প্রত্যাখ্যানের ঘটনায়। পরিষ্কারভাবেই হাদিসে বর্ণিত আছে, আবু তালিব তার পিতা আবদুল মুত্তালিবের ধর্মেই অবিচল থাকেন। [11]

সহীহ বুখারী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
২০/ জানাযা
পরিচ্ছেদঃ ৮৬৩. মুশরিক ব্যক্তি মৃত্যুকালে (কালিমা-ই-তাওহীদ) লা-ইলাহা-ইল্লাল্লাহু উচ্চারণ করলে।
১২৭৭। ইসহাক (রহঃ) … সায়ীদ ইবনু মূসাইয়্যাব (রহঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আবূ তালিব এর মৃত্যুর সময় উপস্থিত হলে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার কাছে আসলেন। তিনি সেখানে আবূ জাহল ইবনু হিশাম ও আবদুল্লাহ ইবনু উমাইয়্যা ইবনু মুগীরাকে উপস্থিত দেখতে পেলেন। (রাবী বলেন) রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আবূ তালিবকে লক্ষ্য করে বললেন, চাচাজান! ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ কালিমা পাঠ করুন, তা হলে এর অসীলায় আমি আল্লাহর সমীপে আপনার জন্য সাক্ষ্য দিতে পারব।
আবূ জাহল ও আবদুল্লাহ ইবনু আবূ উমায়্যা বলে উঠল, ওহে আবূ তালিব! তুমি কি আবদুল মুত্তালিবের ধর্ম থেকে বিমুখ হবে? এরপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার কাছে কালিমা পেশ করতে থাকেন, আর তারা দু’জনও তাদের উক্তি পুনরাবৃত্তি করতে থাকে। অবশেষে আবূ তালিব তাদের সামনে শেষ কথাটি যা বলল, তা এই যে, সে আবদুল মুত্তালিবের ধর্মের উপর অবিচল রয়েছে, সে আবদুল মুত্তালিবের ধর্মের উপর অবিচল রয়েছে, সে ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বলতে অস্বীকার করল।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আল্লাহর কসম! তবুও আমি আপনার জন্য মাগফিরাত কামনা করতে থাকব, যতক্ষণ না আমাকে তা থেকে নিষেধ করা হয়। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ পাক নাযিল করেন, ‏مَا كَانَ لِلنَّبِيِّ‏ ‏ الآيَةَ নবীর জন্য সঙ্গত নয় … (সূরা তাওবাঃ ১১৩)।
[ আত্মীয়-স্বজন হলেও মুশরিকদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করা নবী ও যারা ঈমান এনেছে তাদের জন্য সংগত নয় যখন এটা সুস্পষ্ট হয়ে গেছে যে, নিশ্চিতই তারা প্রজ্বলিত আগুনের অধিবাসী। ]
হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ সাঈদ ইবনু মুসাইয়্যাব (রহঃ)

উপসংহার

জানা যায়, আবদুল মুত্তালিব পরবর্তীতে কিছুদিন মুহাম্মদকে পুত্র স্নেহে লালন করেন। আবদুল মুত্তালিবের এই মহানুভবতার জন্য সে কাফের হওয়া সত্বেও মুহাম্মদ উনার সম্পর্কে সম্মান রেখেই কথা বলতেন তাকে সব সময়ই শ্রদ্ধা করতেন, ভালোবাসতেন, সম্মান করতেন। আবদুল মুত্তালিব কাফের এবং মুশরিক এটি জানা থাকার পরেও, নিজেকে আবদুল মুত্তালিবের পুত্র হিসেবে তিনি পরিচয় দিতে গর্ব করতেন। আমি কোন সিদ্ধান্তে যাচ্ছি না। পাঠকের হাতে ছেড়ে দিচ্ছি পুরো বিষয়টি। আপনারা সাধারণ গণিত করেছেন, কমনসেন্স খাঁটিয়ে ভেবে দেখবেন। ধন্যবাদ।

তথ্যসূত্রঃ
  1. কোরআন ৬৮ঃ১৩ []
  2. তাফসির ইবনে কাছের রহ, ৮-১৬ নং আয়াতের তাফসীর []
  3. তাফসীরে ইবনে কাসীর, খণ্ড ১১, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, পৃষ্ঠা ২২৫ []
  4. Muhammad: His Life Based on the Earliest Sources, Martin Lings []
  5. Muhammad: His Life Based on the Earliest Sources, Martin Lings, পৃষ্ঠা ২১ []
  6. আর রাহীকুল মাখতুম, আল্লামা সফিউর রহমান মোবারকপুরী, তাওহীদ পাবলিকেশন্স, পৃষ্ঠা ৭৫ []
  7. আর রাহীকুল মাখতুম, আল্লামা সফিউর রহমান মোবারকপুরী, তাওহীদ পাবলিকেশন্স, পৃষ্ঠা ৭৬ []
  8. Muhammad ibn Saad. Kitab al-Tabaqat al-Kabair vol. 3. Translated by Bewley, A. পৃষ্ঠা ৪ []
  9. আসহাবে রাসুলের জীবনকথা, মহিলা সাহাবী, মুহাম্মদ আবদুল মাবুদ, বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার, ষষ্ঠ খণ্ড, পৃষ্ঠা ৯৮ []
  10. ( আর রাহীকুল মাখতুম, আল্লামা সফিউর রহমান মোবারকপুরী, তাওহীদ পাবলিকেশন্স, পৃষ্ঠা ৭৯, ৮০ []
  11. সহীহ বুখারী, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, হাদিস নম্বর- ১২৭৭ []

One thought on “নাস্তিকরা জারজ সন্তান?

  • September 11, 2020 at 11:02 AM
    Permalink

    দারুণ লেখা! অবশ্য এই লেখকের শক্তিশালী লেখা অনেকের মত আমাকেও অভিভূত করে! উনার মঙ্গল কামনা করি!

    Reply

Leave a Reply

%d bloggers like this: