শাতিমে রাসুল সম্পর্কিত শারিয়ার বিধান

ভূমিকা

শুরুতেই বলে নেয়া জরুরি যে, মুক্তচিন্তায় মুরতাদ কতলের নিয়ম নেই। আমাদের দৃষ্টিতে বিশ্বাস অবিশ্বাস নিতান্তই ব্যক্তিগত বিষয়। নাস্তিক্যবাদ বা সংশয়বাদ ত্যাগ করে কেউ যদি ইসলামে ফেরত যেতে চান, তার দরজার সবসময় খোলা। শুধু তাই নয়, যেন এখন থেকে তারা নাস্তিক ও নাস্তিক্যবাদের কঠোর সমালোচনা করতে পারেন, তার পক্ষেও আমরা থাকবো। আমাদের নিয়ে কটূক্তি বা সমালোচনা যাই করুক, উনারা যেন নির্ভয়ে তা করতে পারেন, তাদের বাক স্বাধীনতা আমাদেরই রক্ষা করতে হবে। উনারা যেন প্রাণভয়ে ভীত হতে না হয়। কারণ উনার বাক স্বাধীনতা সবকিছুর উর্ধ্বে। এটি ব্যক্তি নিরপেক্ষ, তাই সকলের জন্য বাক স্বাধীনতা একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং জরুরি মানবাধিকার।

মুফাসসিল ইসলাম হোক আর যেই হোক, উনারা যেন কোন ভয়ভীতি গালাগালি হুমকিধামকি ছাড়াই মনের সুখে এখন ব্যক্তিগত পরিসরে ইসলাম পালন করতে পারেন (অন্যের ক্ষতি না করে), আমরা তার পক্ষে প্রয়োজনে লড়াই করবো৷ উনাদের জন্য আমাদের সকলের শুভকামনা রইবে। আল্লাহ পাক যেন উনাদের জান্নাত দান করেন, আমরা সেটাই কামনা করি।

কিন্তু সত্যিকার অর্থে, শাতিমে রাসুলের শাস্তি ইসলামে কী? সেই নিয়েই এই আলোচনাটি। এই লেখাটিতে আমি পরিষ্কারভাবে প্রমাণ করবো, শাতিমে রাসুলকে -এমনকি, সে অন্তর থেকে তওবা করার ফলে আল্লাহ পাকও যদি মাফ করেন, তারপরেও ইসলামী শরীয়ার হুকুম এটিই যে, তাকে কতল করতে হবে। এছাড়া ভিন্ন কোন পথ নেই। কারণ এটিকে বলা হয় উম্মাহর অধিকার। উম্মাহর অধিকার হরণের অধিকার কাউকেই দেয়া হয় নি।

মানসিক বিকার নাকি চারিত্রিক স্বভাব?

মুফাসসিল ইসলাম নবী মুহাম্মদকে শুধুমাত্র জারজ বা ধর্ষকই নয়, অজস্র গালাগালি এবং বাজেভাবে আক্রমণের পরে, মদ খেয়ে নামাজ পরা বা কোরআন ছিড়ে কমোডে ফ্ল্যাশ করা ছাড়াও নানাভাবে ইসলামকে গালাগালি করে বর্তমানে আবারো ইসলামে ফেরত গেছেন। সেটি উনি করতেই পারেন, আমাদের নাস্তিকদের দৃষ্টিতে উনার যেকোন কিছু করার সম্পূর্ণ অধিকার রয়েছে। তবে ইসলামে ফেরত গিয়েই তিনি বরাবরের মতই অনেক ইসলাম জানেন বলে দাবী করে বেড়াচ্ছেন। অনেক জায়গাতে আবার নিজেকে ইসলামিক স্কলার বলেও দাবী করছেন, যা থেকে প্রমাণ হয় ইসলামিক স্কলার শব্দটির মানেই উনি বোঝেন না। দায়ীঈ কাকে বলে আর আলেম কাকে বলে, স্কলার কাকে বলে, এই দুইয়ের পার্থক্য কী, সেটাই উনি জানেন না। আমি মোটামুটি শতভাগ নিশ্চিতভাবে বলতে পারি, উনার ইসলামি ফিকাহ সম্পর্কে একদম সাধারণ জ্ঞানটুকুও নেই। কারণ সেই জ্ঞান থেকে থাকলে, শারীয়া এবং উম্মাহের অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন পূর্বক, উনার নিজেকেই নিজের মৃত্যুদণ্ড দিয়ে ইসলামের মর্যাদা সমুন্নত রাখা উচিত।

উনি যেই এইবারই প্রথম ইসলাম ত্যাগ করেছেন, তা কিন্তু নয়। ২০১১ সালেও একবার উনি ইসলাম ত্যাগ করে আবার মুসলিম হয়েছিলেন। সেইবার একবার নাস্তিক, তারপরে আবার মুসলিম হওয়ার পরে উনি কী যুক্তি দিয়েছিলেন দেখে নিনঃ

এরপরে উনি আবারো ২০১৩ সালে পুনরায় ইসলাম ত্যাগ করেন। সেই সময়ে উনি যেসব ভিডিও প্রকাশ করেন, সেগুলো সবই মুছে ফেলা হয়েছে, তবে দুই একটি রয়ে গেছে। দেখুনঃ

এরপরে আবার ইসলামে ফেরেন, এবং ২০১৬ সালে আবারো কাফের কিং হিসেবে নিজেই নিজেকে পরিচিত করতে শুরু করেন। উনি সেই সময়ে উনি নবী মুহাম্মদ সম্পর্কে কী কী বলতেন সেগুলো অনলাইনে সকলেই জানেন। এখানে সবচাইতে ভদ্র এবং সভ্য ভিডিওগুলো দেয়া হয়েছে। এই ভিডিও ছাড়াও অসংখ্য ভিডিওতে উনি নবী মুহাম্মদকে খাস বাংলায় গালাগালি করেছেন। এমন কোন গালি নেই যে উনি মুহাম্মদকে দেন নি। অত্যন্ত বাজে ভাষা এবং নোংরা শব্দ হওয়ার কারণে আমরা তা প্রকাশ করছি না। কারণ আমরা গালাগালি নয়, যৌক্তিক এবং তথ্যভিত্তিক সমালোচনা করতে আগ্রহী। মুফাসসিলের ঐসব গালাগালি উনার পুরনো ভিডিও খুঁজলেই আপনারা সব পেয়ে যাবেন। এছাড়াও কোরআন ছিড়ে কমোডে ফ্ল্যাশ করা, নবী পত্নীদের নিয়ে অশালীন কথা বলা, মদ হাতে নিয়ে নামাজ পরা, মুহাম্মদের বাবা মা তুলে গালাগালি করা ছাড়াও উনার অনেক কীর্তি রয়েছে।

এরকম আরো হাজার হাজার ভিডিও আছে, যেগুলো কুৎসিত এবং নোংরা। সেগুলো এখানে দিলে এই লেখাটিই নোংরা হবে। তাই সেগুলো বাদই রাখলাম।

কোরআনের আয়াত

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ইসলাম অনুসারে, আল্লাহ পাক কী মুফাসসিলকে ক্ষমা করে দেবেন? সেই প্রশ্নের উত্তর আমরা জানি না। কারণ আল্লাহর কোন প্রমাণই এখন পর্যন্ত পাওয়া যায় নি। তবে মুফাসসিল যা করেছেন, বারবার ইসলাম গ্রহণ এবং ত্যাগ, এই সম্পর্কে সুস্পষ্ট কোরআনের আয়াতই রয়েছে। পড়ুন সুরা নিসার ১৩৭ নম্বর আয়াতটিঃ

MUHIUDDIN KHAN এর অনুবাদঃ

যারা একবার মুসলমান হয়ে পরে পুনরায় কাফের হয়ে গেছে, আবার মুসলমান হয়েছে এবং আবারো কাফের হয়েছে এবং কুফরীতেই উন্নতি লাভ করেছে, আল্লাহ তাদেরকে না কখনও ক্ষমা করবেন, না পথ দেখাবেন।

কোরআন ৪/১৩৭

শাতিমে রাসুলের শাস্তি

শুধুমাত্র নবী মুহাম্মদই নয়, যেকোন নবী কিংবা রাসুল সম্পর্কে গালি দেয়া, নোংরা কথা বলা, কটূক্তি করা মানুষ সে কাফির হোক কিংবা মুসলিম, সে তওবা করুক কিংবা না করুক, ইসলামী শরীয়া এবং চার মাজহাবের চার প্রধান ইমাম তথা ইমাম আবু হানিফা, ইমাম মালিক, ইমাম শাফী এবং ইমাম হাম্বলির সম্মিলিত মতামত এটিই যে, তাকে মৃত্যুদণ্ড দিতে হবেএই বিষয়ে সকল আলিমের সম্মিলিত ঐক্যমত্য রয়েছে। পৃথিবীর কোন আলেম এই বিষয়ে ভিন্ন মতামত দিতে পারবেন বলে আমি মনে করি না।

ইসলামী শরীয়া অনুসারে, কিছু অপরাধে শরিয়া আইনে তওবার পরেও মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। যেমন- বিবাহিত ব্যক্তির জেনা, শাতেমে রাসুল, হত্যা (যতক্ষণ না পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্থের পরিবার ক্ষমা করে)। ইসলামী শরীয়ায় এই বিধান সুস্পষ্ট এবং এখানে অহেতুক কোন বিতর্কেরও সুযোগ নেই। এমনকি, সে যদি অন্তর থেকে তওবা করে, সেই তওবা যদি মুসলিমরা মেনেও নেয়, তারপরেও তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে হবে। অর্থাৎ, সেই তওবা যদি অন্তর থেকেও হয়, আল্লাহ হয়তো তাকে ক্ষমা করতেও পারেন, কিন্তু পৃথিবীর বিচারে অবশ্যই তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে হবে। এটাই ইসলামী শরীয়ার বিধান।

তবে শাতেমে রাসুলকে হত্যা বিষয়ে ছোট একটি ফাঁক রয়েছে। যদি কোন কাফের বা মুসলিম ইসলাম সম্পর্কে অজ্ঞতাবশত নবীকে গালাগালি করে, কটুক্তি করে, তার যদি শাতিমে রাসুলের শাস্তি সম্পর্কে ধারণা না থাকে, অথবা সে যদি পাগল হয়ে থাকে, তাহলে সে দাবী করতে পারে যে, সে বিষয়টি সম্পর্কে অজ্ঞতাবশত বা পাগল অবস্থায় এই ভুল করেছে। সেই ক্ষেত্রে তার তওবা এবং ক্ষমাপ্রার্থণা দুইই মেনে নেয়ার সুযোগ আছে। তবে যাচাই করে দেখতে হবে, আসলেই সে অজ্ঞতাবশত বা পাগল অবস্থায় এরকম কাজ করেছে কিনা। এমনকি, কেউ যদি বলে আমি মদের নেশায়, বা অন্য কোন নেশায় এই কাজ করেছি, তার এই অজুহাতও গ্রহণ করা হবে না। অন্য কোন অজুহাত বা শয়তানের ধোঁকা, এগুলোও গ্রহণ করা হবে না। শুধুমাত্র অজ্ঞতাবশত বা পাগল অবস্থায় কেউ করলে তার ওপর মৃত্যুদণ্ড জাড়ি করা যাবে না। এটিই চার মাজহাবের সকল আলেমদের ঐক্যমত। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, মুফাসসিল কী অজ্ঞতাবশত মুহাম্মদকে গালি দিতো, নাকি সে তখন পাগল ছিল? নাকি এখনো পাগলই আছেন? সেটি আমাদের প্রশ্ন হতেই পারে।

এই সম্পর্কে শরীয়ায় বিধান

শায়েখ মুহাম্মাদ সালিহ আল মুনাজ্জিদ

বর্তমান সময়ে ইসলামী শারীয়া সম্পর্কে সবচাইতে বড় পণ্ডিতদের মধ্যে একজন মুহাম্মাদ সালিহ আল মুনাজ্জিদ সৌদি আরবের একজন সালাফি স্কলার, যিনি ইসলামকিউএ.ইনফো ওয়েবসাইট প্রতিষ্ঠার জন্য পরিচিত, যা সালাফি মানহাযের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর প্রদান করে। আল জাজিরা এবং সৌদি সরকার সহ অসংখ্য জায়গাতেই তার ব্যাখ্যা রেফারেন্স হিসেবে গ্রহণ করা হয়। তার দ্বারা পরিচালিত ওয়েবসাইটে এই বিষয়ে কী বলা, তা আগে জেনে নিই। যারা ইংরেজি ভালভাবে পড়তে পারেন না, তাদের জন্য সংক্ষিপ্তভাবে ভাবার্থ বলছিঃ

নবী মুহাম্মদকে কেউ অবনাননা, কটূক্তি বা গালাগালি করলে সকল আলিমই এই বিষয়ে ঐক্যমত্যে পৌঁছেছেন যে, তাকে হত্যা করতে হবে। সে ইসলামে ফেরত আসলে, তওবা করলে, তারপরেও তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে হবে। আল্লাহ তাকে ক্ষমা করতে পারেন, নাও করতে পারেন। কিন্তু সেই ব্যক্তি উম্মতের হক নষ্ট করেছে বিধায়, উম্মতের অধিকার হচ্ছে তাকে কতল করা।

এবারে তার লেখা থেকেই রেফারেন্স দিচ্ছিঃ

Hence the scholars are unanimously agreed that the one who impugns the Prophet (blessings and peace of Allah be upon him) is a kaafir and apostate who has gone beyond the pale of Islam. 

Shaykh al-Islam Ibn Taymiyah (may Allah have mercy on him) said: 

Impugning Allah or impugning His Messenger is kufr both inwardly and outwardly, regardless of whether the one who does that believes that it is haraam or he thinks that it is permissible for him, or he was not thinking of the ruling when he did that. This is the view of the fuqaha’ and all of Ahl as-Sunnah who say that faith is comprised of both words and deeds. 

As-Saarim al-Maslool, 1/513 

It says in al-Mawsoo‘ah al-Fiqhiyyah (40/61): 

The Holy Qur’an tells us that it is a grave sin to disparage the Prophet (blessings and peace of Allah be upon him) or belittle him, and the one who does that is cursed. That is in the verses in which Allah, may He be exalted, says (interpretation of the meaning):

“Verily, those who annoy Allah and His Messenger (SAW) Allah has cursed them in this world, and in the Hereafter, and has prepared for them a humiliating torment”

[al-Ahzaab 33:57]

“If you ask them (about this), they declare: We were only talking idly and joking. Say: Was it at Allah and His Ayat (proofs, evidences, verses, lessons, signs, revelations, etc.) and His Messenger (SAW) that you were mocking?

Make no excuse; you have disbelieved after you had believed. If We pardon some of you, We will punish others amongst you because they were Mujrimoon (disbelievers, polytheists, sinners, criminals, etc.)”

[at-Tawbah 9:65-66].

The fuqaha’ are of the view that the one who does any of these things is to be regarded as a kaafir. End quote. 

It also says (22/184): 

The ruling on the one who impugns him (blessings and peace of Allah be upon him) is that he is an apostate, and there is no difference of scholarly opinion concerning that. End quote. 

If the one who impugns the Prophet (blessings and peace of Allah be upon him) is an apostate, then the punishment prescribed for him in sharee‘ah is execution; there is no difference of scholarly opinion concerning that. 

Ibn al-Mundhir (may Allah have mercy on him) said: 

The majority of scholars are agreed that the one who impugns the Prophet (blessings and peace of Allah be upon him) is to be executed. End quote. 

See: Tafseer al-Qurtubi, 8/82 

Al-Khattaabi (may Allah have mercy on him) said: 

I do not know of any of the Muslims who differed concerning the obligation of executing him. End quote. 

Ma‘aalim as-Sunan, 3/295 

তিনি আরো বলেন, শাতিমে রাসুলকে অবশ্যই মৃত্যুদণ্ড দিতে হবে। তবে তার কবর মুসলিমদের অনুসরণ করে ইসলামী জানাজা পরিয়ে মুসলিমদের কবরস্থানে হবে, নাকি তার লাশ দূরে কোথায় ফেলে দেয়া হবে, এই বিষয়ে দুই ধরণের মতামত আছে। একপক্ষ বলেন, সে অন্তর থেকে তওবা করলেও কতল করতেই হবে, তবে মুসলিমদের কবরস্থানে তাকে দাফন করা যাবে। আরেকদল মনে করেন, তার লাশের জানাজাও হবে না। লাশটিকে দূরে কোথাও ফেলে দিতে হবে।

If the one who impugned the Prophet (blessings and peace of Allah be upon him) repents and regrets what he did, and he comes back to Islam, that repentance will benefit him in his relationship with Allah. So before Allah he will be a believing Muslim. But with regard to his execution, the obligation of executing him will not be waived. So he will be killed as a Muslim, and he should be washed, the funeral prayer should be offered for him, he may be inherited from and he should be buried in the Muslim graveyard. As for the apostate who did not come back to Islam, he is to be executed as a kaafir. 

The first opinion is that repentance will not be accepted from the one who impugned Allah or His Messenger (blessings and peace of Allah be upon him). This is the well-known view of the Hanbalis. Rather he is to be executed as a kaafir, and the funeral prayer is not to be offered for him and supplication is not to be offered for mercy for him, and he is to be buried in a place far away from the Muslim graves. 

The second opinion is that the repentance of one who had reviled Allah or His Messenger (blessings and peace of Allah be upon him) will be accepted if it is known that he has sincerely repented to Allah, and he admits that he made a mistake and speaks of Allah, may He be exalted, in a way that reflects the veneration He deserves. This is because of the general meaning of the evidence that indicates that repentance is accepted, such as the verse in which Allah, may He be exalted, says (interpretation of the meaning): “Say: O ‘Ibaadi (My slaves) who have transgressed against themselves (by committing evil deeds and sins)! Despair not of the Mercy of Allaah, verily, Allaah forgives all sins” [al-Zumar 39:53]. There are some of the kuffaar who impugn Allah, yet despite that their repentance is accepted. This is the correct view. The repentance of one who impugned the Messenger (blessings and peace of Allah be upon him) is accepted, but he must be executed. This is unlike the one who impugns Allah; his repentance is accepted but he is not to be executed, because Allah has told us that He forgives transgressions against His rights if the person repents, and that He forgives all sins.

islamqa.info থেকে বাকিটুকু পড়তে পারেন।

ইযাহুল মুসলিম

এবারে আসুন, সহিহ মুসলিম গ্রন্থের শরাহ গ্রন্থ ইযাহুল মুসলিম থেকে ৪০৮ নম্বর পৃষ্ঠাটি পড়ি। বইটি এই লিঙ্ক থেকে ডাউনলোড করে নিন

শাতিমে রাসুলের শাস্তির দলীলাদি

এখন আসুন, প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার মাওনালা মুহাম্মদ আবদুল মান্নানের লেখা থেকে এই সম্পর্কিত রেফারেন্সসমূহ দেখে নিই। এখানে উল্লেখ হওয়া শেফা শরীফ, ফাতহুল বারী, ফাতহুল ক্বাদীর ইত্যাদি বইয়ের রেফারেন্স সমূহ চাইলে দেয়া যাবে। বইটির ডাউনলোড লিঙ্ক

উপসংহার

আমরা নাস্তিকরা, সংশয়বাদীরা কোন অবস্থাতেই চাই না, কারো ধর্মের কারণের কোনদিন কাউকে সামান্য আঘাতও করা হোক। ধর্ম ব্যক্তিগত বিষয়, এটি যার যেভাবে ইচ্ছা পালন করবে। কিন্তু, কেউ যদি নিজেকে সত্যিকারের সুন্নী মুসলমান দাবী করে, তাহলে তার অবশ্যই উচিত ইসলামের ইমান আকিদা, শারীয়ার হুকুম আহকাম কোন রকম ধানাই পানাই ছাড়া, কোন রকম হাস্যকর আজগুবি অজুহাত ছাড়া সেগুলো নিষ্ঠার সাথে পালন করা। নিজের কল্লা রক্ষা করতে ইসলামের হুকুমতকে নানান অজুহাতে যারা অবজ্ঞা করবে, তারা আসলে ইসলামকে নয়, নিজের জীবনকেই বেশি ভালবাসে। মুফাসসিল ইসলাম যদি সত্যিই আল্লাহ, তার নবী এবং ইসলামকে মন দিয়ে ভালবেসে থাকে, তাহলে তার অবশ্যই উচিত ইসলামী শারীয়ার এই অলঙ্ঘণীয় বিধানকে মাথা পেতে নিয়ে, ইসলামের আদর্শ সমুন্নত থাকতে কোন শারীয়া ভিত্তিক রাষ্ট্রে প্রবেশ করে নিজের অপরাধের বিবরণ পেশ করা, এবং তাদেরকে অনুরোধ জানানো যে, তার ওপর যেন মৃত্যুদণ্ড আরোপ করা হয়।

মুফাসসিল যদি এমন দাবী করেন যে, উনি চার মাজহাবের চারজন প্রধান ইমাম সম্পর্কেও বেশি ইসলাম জানেন, ইসলাম বোঝেন, প্রখ্যাত ক্ল্যাসিক্যাল যুগের স্কলারগণ কেউই আসলে ইসলাম বুঝতে পারে নি, পৃথিবীর কোন ইসলামিক স্কলারই আসলে ইসলাম বোঝে না, উনিই সবচাইতে বেশি জানেন এবং বোঝেন, তাহলে ভিন্ন কথা। এরকম দাবী উনি অবশ্য মাঝে মাঝেই করেন, সেগুলো শুনলে উনার মানসিক ভারসাম্য সম্পর্কে আমরা শুধু নিশ্চিত হতে পারি। আর তেমন কিছু উনাকে বলার নেই।

উনি যদি আসলেই সুস্থ মস্তিষ্কে আবারো ইসলামে ফিরে এসে থাকেন, তাহলে উনার উচিত হবে এই শাস্তি নিজের ওপর প্রয়োগ করা। কোন শারীয়া ভিত্তিক রাষ্ট্রে প্রবেশ করে নিজের অপরাধের বিবরণ তাদের কাছে স্বীকার করে আত্মসমর্পন করা। এরপরে শারীয়া কাউন্সিল আইন অনুসারে তার ব্যবস্থা নেবে। উনি যদি সেই শারীয়া কাউন্সিলকে বোঝাতে সক্ষম হন, তাহলে তো ভাল কথা। উনি বুক ফুলিয়ে ফিরে আসবেন। ইসলামের প্রতি অসীম ভালবাসা থাকলে এইটুকু তো তিনি করতেই পারেন। দেখা যাক, উনি আসলেই ইসলামকে ভালবাসেন নাকি উনি আগের মতই ধানাই পানাই করে গোঁজামিল দিয়ে ইতরামি করে চাপাবাজি করে নিজের কল্লা রক্ষা করেন। সহিহ মুসলিম হয়েছেন, নাকি ধাপ্পাবাজই রয়ে গেছেন। যদিও আমি নিশ্চিত, ইসলাম, শারীয়া এবং নবীর সম্মান সমুন্নত রাখতে উনি নিশ্চয়ই নিজের কল্লা খোয়াতে চাইবেন না।

কারণ উনি জাতে মাতাল হলেও, তালে ঠিক।

Facebook Comments

3 thoughts on “শাতিমে রাসুল সম্পর্কিত শারিয়ার বিধান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *