নাস্তিকরা ঈশ্বরের কেমন প্রমাণ চায়?

এই প্রশ্নে পৃথিবীর সকল নাস্তিকের উত্তর একরকম হয় না। কিছু উত্তর অন্যান্যদের উত্তরের চেয়ে বেশি কঠোর হয়।

প্রথমেই জেনে রাখুন, “প্রমাণ করা” বলতে আমরা কি বুঝাচ্ছি। “প্রমাণ করা” কে আমরা সংজ্ঞায়িত করছি, “যৌক্তিক সন্দেহের ঊর্ধ্বে প্রদর্শন করা”।

একটি বড় সমস্যা হলো, “ঈশ্বর” শব্দটির অনেকরকম সংজ্ঞা আছে, ঠিক যেমন পৃথিবীতে অনেকরকম আস্তিক আছে। ঈশ্বরের সংজ্ঞায় ঈশ্বর অবশ্যই “প্রমাণসাধ্য” হতে হবে। ঈশ্বর বলতে যদি এমনকিছু ধরে নেওয়া হয় যা প্রমাণ করা যায় না, তাহলে “নাস্তিকরা ঈশ্বরের কেমন প্রমাণ চায়?” প্রশ্নটি করার আর কোনো অর্থ থাকে না। যে ঈশ্বরের সংজ্ঞায় ঈশ্বর প্রমাণাতীত, নাস্তিকরা সেই ঈশ্বরের কেমন প্রমাণ চায় জিজ্ঞেস করা ন্যায্য নয়। কারো বিশ্বাস অনুযায়ী, ঈশ্বর যদি এমন কেউ হয় যার অস্তিত্ব প্রমাণ করা যায়, তাহলেই সে এই প্রশ্নটি করতে পারে যে, “নাস্তিকরা ঈশ্বরের কেমন প্রমাণ চায়?”

তারপর সে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুসরণ করবে। বাস্তবতা কি এবং কিভাবে কাজ করে তা সঠিক এবং যথাযথভাবে নির্ধারণ করার জন্য বিজ্ঞান মানুষের কল্পনা করা সবচেয়ে কার্যকরী পদ্ধতি। এটি অবিশ্বাস্যভাবে খুঁতখুঁতে, কঠোর, ধীর এবং কঠিন। এটি দারুণ কাজ করে।

আপনি যদি ঈশ্বরের অস্তিত্ব প্রমাণের চেষ্টা করতে চান, এটি একটি ভালো প্রক্রিয়া হতে পারেঃ

  • আপনি যা প্রদর্শন করতে চাচ্ছেন তা এবং তার বৈশিষ্ট্যাবলী সংজ্ঞায়িত করুন।
  • কিছু সম্ভাব্য পরীক্ষা বের করুন যা ঐ বৈশিষ্ট্যাবলী প্রদর্শন করবে, সেইসাথে যা এটি Falsify করবে।
  • পরীক্ষা সমূহ সঞ্চালন করুন এবং প্রমাণ একত্রিত করুন।
  • Peer Review এর জন্য সাবমিট করুন।
  • যদি এটি Peer Review তে টিকে যায়, তাহলে সেই ব্যক্তির কাছে সাবমিট করুন যাকে আপনি উপলব্ধি করাতে চাচ্ছেন।

আস্তিকরা প্রায়ই নাস্তিকদের উপলব্ধি করানোর জন্য ভয় দেখানো (“তুমি জাহান্নামে পুড়বে!”) বা আবেগ দিয়ে প্ররোচিত করার (“কিন্তু যীশু তোমাকে কতো ভালোবাসে!”) চেষ্টা করে। আমাদেরও অন্য যেকারো মতো এমন অনুভূতি আছে। তবে, যখন বাস্তবতা সম্পর্কে সঠিক সত্যতার ব্যাপার চলে আসে, তখন যুক্তি এবং তথ্যপ্রমাণের দারস্থ হতেই হবে।

মূল লেখাঃ What would it take to prove to you that a god exists?

প্রাসঙ্গিক লেখাঃ ঈশ্বর হাইপোথিসিস

Marufur Rahman Khan

Ex-Muslim Atheist - Feminist - Secularist

One thought on “নাস্তিকরা ঈশ্বরের কেমন প্রমাণ চায়?

  • February 25, 2020 at 10:26 AM
    Permalink

    Ther is God or not that is my headach. If there is God fine, there is no God fine. But if we assume there is a God,who create our universe. This universe is so enormous, I may that it is limitedlees. Number of stars he created is countless. Our sun which is 1300000 times bigger than our earth. How big is the sun compre to our unnverse ? Smaller than a sand particle. We can assume our earth is like an electron moving round the nucleous inside an atom.We cannot see an atom with our normal eye, but with an electron microscope. Now we can try to immagine our universe. How big it is? Beyound the immagination. Question is, is there a God ( Allah, Yaway,Bhagoban etc. ) who create this limitless universe?
    Again if I say Allah. How enormous is he? How does he look like? Is his power is limited or limitless? One who created all these limitless things, so his power must not be limited. Now the question is does it matter for him that we pray to him or not? What shoud we pray to him? Does he need a messanger to convey his message to us ? If we yes, he needs,then I should say we are really stupid. If he needs a messanger then he is not the most powerful! He needs the help from his own creation, like Sri Krisna, Mosses, Jesus and Mohammed, whom we call Gods messanger? As soon as we say that, we make him very small, like a great king with limited power.
    Who is more intelligent God or we ? Now a days almost every one of us use mobile phone to convey our message to eachother, who created tis moble phone? We humen created it with very limited knowledge and limited life length. Now the question is we, his negligible creation don’t need a messanger but God has messanger? By saying that Gos’s messanger are we not insulting God? Are we not bringing him down to our class or lower? Now the question is God needs messange or not, shall we insult God or not? It is up to you to judge.
    Around 2500 years ago one of the greatst philosopher said ” The boundary of our ignorence is boundless and depth of our ignorence is bottom less”.
    ( Sorry I don’t have bengali alphabets in my computer why I wrote in english. I could explain better in bengali than in english, may be I made some spelling mistake or sentence formation due to my vey limited knowledge inglish, I apologise for that. )

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *