10.ধর্ম ছাড়া নৈতিকতা শিখবো কীভাবে?

Print Friendly, PDF & Email

ধর্ম আমাদের কোন নৈতিকতার শিক্ষা দেয় না। ধর্ম যা শেখায় তা হচ্ছে অন্ধ আনুগত্য, নির্দেশনা পালন যা অন্ধবিশ্বাসের ওপর নির্ভরশীল। অন্ধভাবে সেইসব নির্দেশ মানলে পুরষ্কার এবং না মানলে শাস্তি। এই পদ্ধতি নৈতিকতার শিক্ষার অন্তরায়। কারণ নৈতিকতা হচ্ছে কোনটি সকলের জন্য ভাল, কোনটি সকলের জন্য মন্দ, তা বিচার বিশ্লেষণের ক্ষমতা।

ধর্মগুলোর একটি প্রধানতম দাবী হচ্ছে, ধর্ম নাকি মানুষকে নৈতিকতার শিক্ষা দান করে! খুব গর্ব করে ধর্মের রক্ষকগণ বলে থাকেন যে, তাদের ধর্মীয় নৈতিকতা হচ্ছে অবজেকটিভ, অর্থাৎ স্থান কাল পাত্রের ওপর নির্ভরশীল নয়। অন্যদিকে সাবজেক্টিভ মোরালিটি হচ্ছে স্থান কাল পাত্রের ওপর নির্ভরশীল এবং স্থান কাল পাত্রের সাপেক্ষে পরিবর্তন পরিমার্জন সংশোধন যোগ্য। দাবী অনুসারে, অবজেক্টিভ মোরালিটি উচ্চতর কোন ঐশ্বরিক সত্ত্বা থেকে আসে এবং এর কোন পরিবর্তন পরিমার্জন সংশোধন সম্ভব নয়। কিন্তু অবজেক্টিভ মোরালিটির দাবীদার সেই ধর্মগুলোর মধ্যেই খুব হাস্যকর ভাবেই দেখা যায়, উনাদের ধর্মের প্রবর্তকগণ কখনো কখনো আল্লাহর নির্দেশ মোতাবেক ভাই বোনের যৌন সম্পর্ককে বৈধতা দিয়েছিলেন (আদম হাওয়ার ছেলেমেয়েরা ভাইবোন বিবাহ করেছিল), কখনো মুতা বিবাহকে বৈধতা দিয়েছিলেন, নবীর বেলায় যত খুশী বিবাহের অনুমতি দিয়েছিলেন, ইত্যাদি; এরকম আসলে অসংখ্য উদাহরণ। তাহলে এই নৈতিকতা বা মোরালিটি তো স্থান কাল পাত্রের ওপরই নির্ভরশীল হলো, তাই না? অবজেক্টিভ হলো কোথায়? এই বিষয়ে নিচের ভিডিওটি আসুন দেখে নিই,

মানুষের নৈতিকতার ভিত্তি হওয়া উচিত যুক্তি তথ্য প্রমাণের আলোকে জ্ঞান বিজ্ঞান এবং ক্রমাগত এর মানোন্নয়ন। কোন ঐশ্বরিক কেতাব যা বহুকাল আগের মানুষের নীতি নৈতিকতার জ্ঞানের ওপর রচিত হয়েছে, সেগুলো আমাদের সভ্য সমাজে আর প্রয়োগযোগ্য নয়।

ধরুন, একজন আধুনিক সভ্য মানুষ হিসেবে আপনার কাছে অবশ্যই যুদ্ধবন্দী নারীকে গনিমতের মাল হিসেবে বিছানায় নেয়া খুবই নিন্দনীয় কাজ বলে গণ্য হবে। কিন্তু এই কাজটি আপনার নবীজী নিজ জীবনে কয়েকবারই করেছেন, এবং অন্যদেরও করতে বলেছেন। বা ধরুন আপনি এমন কারও সাথে আপনার বোন বা কন্যাকে বিয়ে দেবেন না, যার ইতিমধ্যে তিনজন স্ত্রী আছে। আপনার বিবেক, বুদ্ধি, আধুনিক মূল্যবোধ, আধুনিক ধ্যান ধারণা আপনাকে সেইসব মধ্যযুগীয় কাজ করতে বাধা দেবে। যদিও আপনি ভাবেন, নৈতিকতার একমাত্র মানদণ্ড আপনার ধর্মটিই, তারপরেও আপনি আপনার বিবেক বুদ্ধি খাঁঁটিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। আপনি যখন বিবেক বুদ্ধি ব্যবহার করছেনই, তখন আপনার জন্য আসলে ধর্মের নৈতিকতার শিক্ষা অগুরুত্বপুর্ণ।

ধর্ম বলছে, শিশু বিবাহ সুন্নত, বহুবিবাহ সুন্নত, কাফের কতল সুন্নত, জিহাদ করা সুন্নত, গনিমতের মাল বা দাসী ভোগ সুন্নত। আপনি বিবেক ব্যবহার করে সেগুলো করেন না। তাহলে অন্যান্য ক্ষেত্রেও এই বিবেকটুকু ব্যবহার করতে দোষ কোথায়?

নৈতিকতা শিক্ষার জন্য ধর্মের প্রয়োজন নেই। ধর্ম আমাদের যেই নৈতিকতার শিক্ষা দেয়, তা আধুনিক নৈতিকতার মাপকাঠিতে পুরোমাত্রায় নোংরামী। ধর্ম আমাদের শেখায় গনিমতের মাল হিসেবে নারীকে ভোগ করা যাবে, নারীকে শষ্যক্ষেত্র হিসেবে ব্যবহার করা যাবে, বিধর্মীরা সব নরকে অনন্তকাল পুড়বে শুধুমাত্র একটি বিশেষ ঈশ্বরে অবিশ্বাসের জন্য। ধর্ম আরো শেখায় ভাল কাজ করলে স্বর্গে অসংখ্য বেশ্যা এবং মদ পাওয়া যাবে, খারাপ কাজ করলে নরকে অনন্তকাল মারপিট হবে। এইসব নৈতিকতা নয়, বেশ্যার লোভে যেই নৈতিকতার উৎপত্তি হয় তা আদৌ নৈতিকতাই নয়, বরঞ্চ এগুলো ঘৃণা সৃষ্টিকারী-বিধর্মী বা নারীর প্রতি। অপরদিকে মানুষের ভেতরেই প্রথিত থাকে কল্যানবোধ, মানুষের প্রতি মানুষের ভালবাসা, যা ধর্ম-জাতীয়তাবাদ-লিঙ্গের বড়াই ইত্যাদির কারণে চাপা পরে যেতে থাকে। নাস্তিক্যবাদ মানুষের ঐ মৌলিক মানবিক বোধের বিকাশের কথা বলে, মানুষের ভেতরের নৈতিকতার কথা বলে, বিবেকের কথা বলে। যা কোন লোভ বা ভয়ের কারণে ভাল কাজ করবে না বা খারাপ থেকে বিরত থাকবে না।

আইনস্টাইন বলেছেনঃ A man’s ethical behavior should be based effectually on sympathy, education, and social ties and needs; no religious basis is necessary. Man would indeed be in a poor way if he had to be restrained by fear of punishment and hope of reward after death.